কল্পনা চাওলাঃ অকালে হারিয়ে যাওয়া ভারতের প্রথম নারী মহাকাশচারী

অসীম আকাশকে জানার ইচ্ছা কার না থাকে। আর তিনি যদি হয় ভারতীয়; তার উপর ভারতের প্রথম মহিলা; যিনি নাসার নভোচারী হয়েছিলেন। তিনি আরন কেউ নন সবার কাছে পরিচিত মুখ ;কল্পনা চাওলা। যেসময়ে তার জন্ম সেই সময়ে ভারত থেকে কেউ নভোচারী হবে ;তা ছিল কল্পনারও বাইরে। এই অসাধ্যকেই সাধন করে ;কল্পনা চাওলা ইতিহাসের পাতায় স্থান করে নিয়েছেন। আজ আমরা জানবো তার জীবনের এই উঠে আসার গল্প।

জন্ম

কল্পনা চাওলার জন্ম ১৯৬২ সালের ১৭ মার্চ ;ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের কারনালে। তিনি মাধ্যমিক শিক্ষা সমাপ্ত করেন কারনালে অবস্থিত ; বালনিকেতন সিনিয়র সেকেন্ডারি স্কুল থেকে। ছোট থেকেই বিজ্ঞানের দিকে ছিল তার আগ্রহ। সে সময় স্থানীয় ফ্লায়িং ক্লাবে যেতেন কল্পনা বাবার হাত ধরে; সেখান থেকেই বিমানের প্রতি তার আগ্রহ তৈরি হয়।

আরো পড়তে পারেন আব্রাহাম লিংকন আমেরিকার কালজয়ী এক প্রেসিডেন্ট

স্কুল জীবন

তখনকার দিনে মেয়েদের লেখাপড়ার দিকে উদাসীন ছিল সবাই। কোন গুরুত্বই পেত না মেয়েদের লেখাপড়া। এই অবস্থার মধ্যেও মায়ের সাহায্য ও চেষ্টায় এগিয়ে গিয়েছেন লেখাপড়ায়। স্কল থেকেই তার চিন্তাই ছিল বৈমানিক হওয়ার। ক্লাসে বসে বিমানের মডেল তৈরি করতেন। ১৯৭৮ সালে মাধ্যমিকে ভাল ফলাফলের পর তিনি তার ইচ্ছাকে বাস্তবে রূপ দিতে; ইঞ্জিনিয়ারিং এ পড়ার ইচ্ছা পোষণ করেন। বাবার তীব্র বিরোধিতা সত্তেও; তিনি মায়ের ইচ্ছায় ভর্তি হন ইঞ্জিনিয়ারিং এ।

উচ্চতর পড়াশুনা

১৯৮২ সালে তিনি পাঞ্জাব প্রকৌশল কলেজ থেকে ;মহাকাশ প্রকৌশলের ওপর স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন। এর পর তিনি পারি জমান যুক্তরাষ্ট্রে উচ্চ শিক্ষা নেওয়ার জন্য। ১৯৮৪ সালে তিনি সেখান কার ইউনিভার্সিটি অফ টেক্সাস অ্যাট আর্লিংটন ;থেকে মহাকাশ প্রকৌশল বিষঅয়ে সানাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন। ১৯৮৬ সালে লাভ করেন পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন।

কর্মজীবন

১৯৮৮ সালে কর্মজীবন শুরু করেন নাসাতে। শৈশবের স্বপ্ন তার বাস্তবে রূপ নেয় ১৯৯৭ সালের ১৯ নভেম্বর। এই দিনই তার প্রথম মহাকাশ যাত্রা শুরু হয়। প্রথম ভারতীয় মহিলা হিসেবে এই কৃতিত্ব অর্জন করেন। ১৫ দিনের মত মহাকাশে অবসস্থান করেন সেখানে। সফল্ভাবে এই অভিযানের পর স্পেস শাটল ১৯৯৭ সালে পৃথিবীতী ফিরে আসে।

২০০ সালে তাকে আবার কলম্বিয়া মিশনে স্পেশালিস্ট হিসেবে নির্বাচন করা হয়। অতপর ২ বছর দেরী করে ২০০৩ সালে কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে লঞ্চ হয়। উড্ডয়নের অল্প কিছু সেকেন্ড পরেই মারাত্নক ক্ষতির সম্মুখীন হয় শাটলটি, তা সত্তেও ১৫ দিন সফলভাবে মহাকাশে অবস্থান করে যানট। ২০০৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে ফেরার সময় বায়ুমন্ডলে ধাক্কা খায় ;ও অবতরণের ১৬ মিনিট আগে স্পেস ক্রাফটি আকাশে বিদ্ধোস্ত হয়। স্পেস এ থাকা ৭ জনের কেউই বেছে ফিরতে পারেন নি।

কল্পনা চাওলা তার জীবনে যা চেয়েছিলেন; তা সফলতার সাথে অর্জন করেছেন। ভারতীয়দের জন্য তিনি মহাকাশ গবেষণার পথ খুলে দিয়ে গেছেন। তাকে সম্মান জানিয়ে ভারত তাদের প্রথম স্যাটেলাইটের নাম; কল্পনা -১ রাখে। তিনি তার কাজের মাধ্যমে বেচে থাকবেন চিরকাল।

আমাদের সাতে যুক্ত হতে লাইক দিন নববহ্নি পেজ এ

Check Also

চেঙ্গিস খান

চেঙ্গিস খান ও মঙ্গোলদের উত্থান

চেঙ্গিস খান মঙ্গোল সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন এবং; যা তিনি ১২০৬ সাল থেকে ১২২৭ সাল পর্যন্ত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *