সমাজ কাকে বলে। সমাজের বৈশিষ্ট্য কি কি

Table of Contents

সমাজ কাকে বলে

এমন একদল লোককে বোঝায় যারা একটি নির্দিষ্ট সম্প্রদায়ে বাস করে এবং একই সংস্কৃতি মেনে চলে।

এক কথায় “পরস্পর নির্ভরশীল গোষ্ঠীকে সমাজ” বলা হয়। বিস্তৃত অর্থে, সমাজ আমাদের চারপাশের ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠান, আমাদের ধর্মীয় বিশ্বাস এবং সাংস্কৃতিক ধারণা নিয়ে গঠিত।
সমাজ কাকে বলে
সুষম খাদ্য কাকে বলে। আদর্শ খাদ্য তালিকা
রাষ্ট্রবিজ্ঞান কাকে বলে ।
দর্শন কাকে বলে। দর্শনের সংঙ্গা
আধুনিক কম্পিউটারের জনক কে জানুন বিস্তারিত
অর্থনীতি কাকে বলে। অর্থনীতির সংজ্ঞা পরিধি ও বিষয়বস্তু
ব্যবস্থাপনা কাকে বলে। সংজ্ঞা পরিধি ও গুরুত্ব
ভগ্নাংশ কাকে বলে। ভগ্নাংশ কত প্রকার ও কি কি

সমাজ এমন একদল লোককে বর্ণনা করে যারা একটি নির্দিষ্ট ভৌগলিক এলাকায় বাস করে এবং যারা একে অপরের সাথে যোগাযোগ করে এবং একই সংস্কৃতি ভাগ করে। সমাজ এমন লোকদের নিয়ে গঠিত যারা পারস্পরিক সুবিধার জন্য একসাথে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

দার্শনিকদের মতে সমাজ:

“সমাজ বলতে আমরা এমন একদল লোককে বুঝি যারা একটি সাধারণ লক্ষ্য অর্জনের জন্য একত্রিত হয়েছে” – সমাজবিজ্ঞানী গিফিংস

“সমাজ পুরুষের বহুবিধ সম্পর্কের একটি অদ্ভুত রূপ” – ম্যাকআইভার

“ইবনে খালদুনের হাত ধরে সর্বপ্রথম বিভিন্ন সামাজিক সমস্যা বৈজ্ঞানিকভাবে সমাধান করা হয়”

“সমাজ হল সামাজিক সম্পর্কের নিয়ন্ত্রণে ব্যক্তিদের সাধারণ জ্ঞান” – সমাজবিজ্ঞানী কিমবল ইয়ং

সমাজ কাকে বলে
সমাজ কাকে বলে

সমাজের ব্যাপ্তি ছোট বা বড় হতে পারে, এর কোনো নির্দিষ্ট সীমা নেই। সমাজ এমনকি বিশ্বব্যাপী হতে পারে। যেমন: রেড ক্রস সোসাইটি (বিশ্ব রেড ক্রস দিবস প্রতি বছর 8 মে পালন করা হয়)।

সমাজ কাকে বলে

একটি সমাজের উপাদান কি কি?

সমাজের প্রথম এবং প্রধান উপাদান হল মানুষ। সমাজের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হল পরিবার। আর সমাজ অনেক পরিবার নিয়ে গঠিত। স্কুল, কলেজ, মসজিদ, মন্দির, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং অন্যান্য সামাজিক প্রতিষ্ঠান ইত্যাদি গড়ে তোলা হয় সমাজের মানুষের সুবিধার জন্য।

সমাজ কেন গুরুত্বপূর্ণ:

আমরা জানি, সমাজ খুবই গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটি আমাদেরকে একটি সিস্টেম এবং বিশ্বের উন্নতির জন্য একসাথে কাজ করার জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম প্রদান করে। সমাজের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় আমরা আমাদের জীবনযাত্রা এবং সামাজিক অবস্থার উন্নতি করতে সক্ষম হয়েছি। সম্মিলিত সামাজিক প্রচেষ্টায় আমরা এগিয়ে যাই। তদুপরি, সমাজের সামাজিক বিশ্বাস, নিয়ম এবং সংখ্যাগরিষ্ঠ নিয়ম রয়েছে যা লোকেদের কীভাবে আচরণ করা উচিত এবং কীভাবে করা উচিত নয় তা নির্ধারণ করতে সহায়তা করে।

সমাজ কিছু সু-সংজ্ঞায়িত নিয়ম ও প্রবিধানের উপর ভিত্তি করে, যার মাধ্যমে মানুষ সহজে বাঁচতে পারে, একে অপরের বিপদে এগিয়ে যেতে পারে। তাই বলা যায় সমাজ কাঠামোবদ্ধ ও নিয়ম-ভিত্তিক। একটি নির্দিষ্ট অঞ্চলের জনসংখ্যা বড় হয়ে কী করবে বা করবে না, তাদের আচরণ কেমন হবে? তারা যে সমাজে বেড়ে উঠছে তা নির্ধারণ করে এই বিষয়গুলো। তাই প্রত্যেকের উচিত তারা যে সমাজে বসবাস করে সেই সমাজকে একটি আদর্শ সমাজে গড়ে তোলা।
সমাজ কাকে বলে

রাষ্ট্রবিজ্ঞান কাকে বলে
রাষ্ট্রবিজ্ঞান কাকে বলে

নববহ্নি

Check Also

পরিসংখ্যান কাকে বলে

পরিসংখ্যান কাকে বলে। এর বৈশিষ্ট্য ও শাখা

পরিসংখ্যান কাকে বলে একটি “ঘটনা” সম্পর্কে সংখ্যাসূচক তথ্যকে পরিসংখ্যান বলা হয়। যে সংখ্যার মাধ্যমে পরিসংখ্যানে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *